ইউটিউব SEO আপনার ভিডিও ভাইরাল করার জন্য কতটা জরুরি।

ইউটিউব SEO আপনার ভিডিও ভাইরাল করার জন্য কতটা জরুরি।

 

হ্যালো বন্ধুরা আসসালামুয়ালাইকুম আশাকরি সকলেই অনেক অনেক ভাল আছেন তো আবার চলে আসলাম আপনাদের মাঝে দারুন একটি পোস্ট নিয়ে আজকের পোস্টটি আপনাদের জন্য অনেক অনেক গুরুত্বপূর্ণ তো নিত্য নতুন সকল ধরনের পোস্ট পেতে আমাদের সাথেই থাকুন।

টেক রিলেটেড যে কোন পোষ্টের জন্য আমাদের সাথে থাকুন আপনি যদি প্রতিদিন আমাদের ওয়েবসাইট ভিজিট করেন তাহলে কিন্তু আপনাদের সকল সমস্যার সমাধান এইখান থেকে আপনি পেয়ে যাবেন আর যদি আপনি চান তাহলে কিন্তু আমাদেরকে কমেন্ট করে জানিয়ে দিতে পারেন যে আপনার কোন সমস্যা হয়েছে তাহলে কিন্তু আমরা আপনার সমস্ত সমস্যার সমাধান নিয়ে আবার আপনাদের সাথে পোস্ট শেয়ার করব।

তো আর দেরি না করে অবশ্য সে কিন্তু আপনার সমস্যা আমাদেরকে কমেন্ট বক্সে জানিয়ে দিবেন তাহলে কিন্তু আপনি আপনার সমাধান পেয়ে যাবেন এবং কি চাইলে আমাদের সাথে যোগাযোগ করতে পারেন নিচে কিন্তু আমাদের ফোন নাম্বারটি দেয়া থাকবে আর দেরি না করে চলুন শুরু করা যাক।

 

 

➤ইউটিউব এসইও কি :
এসইও বা SEO এর ফুল মিনিং Search Engine Optimization আর ইউটিউব এসইও হলো আপনার ভিডিও কে ইউটিউব এর সার্চ রেজাল্ট এর প্রথমে নিয়ে আসা। কেউ আপনার ভিডিও টাইটেল নিয়ে ইউটিউবে সার্চ করলে যেন তা পেয়ে যায়। তবে এজন্য আপনাকে ইউটিউব এসইও সম্পর্কে জানতে হবে। কিভাবে ইউটিউব এসইও করতে হয় তা ধারাবাহিক ভাবে বর্ণনা করা হলো। নিচের একটি YouTube SEO Structure দেওয়া হয়েছে। আপনি সেই অনুযায়ী ভিডিও তৈরী করলে আপনার ভিডিও গুগলে র‌্যাংক করবেই ।

➤ইউটিউব এসইও করার নিয়ম :

YouTube SEO Structure টি বুঝিয়ে দেওয়ার জন্য আমি নিচে সব পয়েন্ট গুলো বাংলায় তুলে ধরেছি যাতে আপনাদের বুঝতে সুবিধা হয়। তাহলে চলুন ইউটিউব এসইও করার নিয়ম পয়েন্ট গুলো বিস্তারিত জেনেনি।

➤লম্বা ভিডিও তৈরী করা :

আপনি যে বিষয়ে ভিডিও তৈরী করবেন, যে কিওয়ার্ড ব্যবহার করবেন, সে কিওয়ার্ড টি আগে ইউটিউবে একবার সার্চ করে দেখুন। আপনার সার্চে যে ভিডিও গুলো আসবে তার গড় অ্যাভারেজ টাইম দেখুন। তারপর তার থেকে একটু বড় এবং ভালো মানের ভিডিও তৈরী করুন। তাহলে আপনার ভিডিও ইউটিউবে র‌্যাংক করবে। মনে রাখবেন ইউটিউবে সব সময় বড় ভিডিও র‌্যাংক করে। ইউটিউবের অ্যালগরিদমরে কারণে কিছু ক্ষেত্রে আলাদা হয়।

➤কিওয়ার্ড রিলেটেড টাইটেল :

আপনার ভিডিওর টাইটেল সব সময় প্রথমে কিওয়ার্ড ব্যবহার করুন তারপর অতিরিক্ত ভাবে রিলেটড শব্দ ব্যবহার করে পারেন। যেমন- Update, Fully Update, Year CTR increase Word ব্যবহার করতে পারেন।

➤ডিসক্রিপশন লিখার নিয়ম :

ইউটিউবে ভিডিও পাবলিশ করার আগে একটি 300-500 ওয়ার্ডের ভিডিও রিলেটেড কথা সুন্দর করে লিখুন তার ভিতরে আপনার কিওয়ার্ড ভালোভাবে উল্লেখ করুন। এলএসআই গ্রাফ ট্যাগ ব্যবহার করার টেষ্ট করুন। যদি ডিসক্রিপশন না লিখতে পারেন তাহলে ছোট লিখুন সমস্যা নাই, কিন্তু আজে বাজে কিছু লিখবেন না।

➤টপিক রিলেটেড ট্যাগে ব্যবহার :

আপনার ভিডিওর কিওয়ার্ড রিলেডেট ট্যাগ ব্যবহার করুন। এমন ট্যাগ ব্যবহার করবেন না যা আপনার ভিডিওতে নেই। এজন্য আপনি ক্রোমের Vidlq Extension ব্যবহার করতে পারেন।

➤আর্কষণীয় থাম্বেনেইল ব্যবহার :

আপনার ভিডিওতে আর্কষণীয় থাম্বেনেইল ব্যবহার করুন যাতে ইউজার তা দেখে ক্লিক করতে চাই। তবে এমন থাম্বেনেইল ব্যবহার করবেন না যা আপনার ভিডিওতে নেই। ক্লিক দিয়ে যদি আপনার ইউজার ভিডিও থেকে ব্যাক করে তাহলে আপনার ভিডিও ফল্ট ডাউন করবে।

➤ভিডিওতে প্রথম ১৫ সেকেন্ড আকৃষ্টকরণ :

আপনার ভিডিওতে প্রথমের দিকে আকৃষ্ট মূলক কিছু যোগ করুন। যেমন ভিডিওর মধ্যে থেকে মূল বিষয়টা 15 সেকেন্ট কেটে প্রথমে যোগ করতে পারেন। তাহলে ব্যবহার কারী ভিডিওটি দেখার আগ্রহ জগবে। মনে রাখবেন প্রথমে দেখলে বাকি ভিডিও দেখার সম্ভাবনা অনেক বেশি।

➤ইউজার রিএ্যাকশন সংকেত :

ব্যবহার কারী আপনার ভিডিও দেখার পড়ে যদি কোন রিএ্যাকশন না করে, তাহলে আপনার ভিডিও ইউটিউবে র‌্যাংক করবে না। এজন্য ভিডিওর মধ্যে ইউজার কে লাইক কমেন্ট শেয়ার করতে বলবেন। যদি কেউ লাইক ডিসলাইক কমেন্ট না করে তাহলে ইউটেউবে ভিডিও র‌্যাংক করবে না।

➤ভিডিও ব্যাকলিংক তৈরী করা :

প্রয়োজনে আপনি আপনার ভিডিওর জন্য কিছু ব্যাকলিংক তৈরী করুন তাহলে ইউটিউব মনে করবে আপনার ভিডিও ভালো এজন্য বিভিন্ন সাইটে ব্লগে সোস্যাল মিডিয়াতে শেয়ার হচ্ছে। ফলে আপনার ভিডিও র‌্যাংক করবে।

➤যদি আপনাদের লিখাটি কাজে আসে তাহলে সার্থক মনে করব, বানানের ভূল হলে মার্জনার চোখে দেখুন। আর লিখাটি ভালো লাগলে লাইক কমেন্ট শেয়ার করুন আপনাদের বন্ধুদের সাথে। তবে এই পোষ্টটিতে যা কিছু বলছি সব নিজের এবং বড় চ্যানেল থেকে যা শিখেছি সে অভিজ্ঞতা থেকে বললাম আমি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *